More

    আখাউড়া স্থলবন্দর আমদানিমুখী হওয়ার খবরে ব্যবসায়ীদের মাঝে উচ্ছ্বাস

    অবশ্যই পরুন

    পটুয়াখালীতে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড

    উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে পটুয়াখালী সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। বাতাসের চাপ আগের চেয়ে কিছুটা...

    স্বাস্থ্যবিধি না মানায় কলাপাড়ায় ৩৪ জনকে অর্থদন্ড

    পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় লকডাউন অমান্য করায় এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৩৪ জনকে অর্থদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বুধবার বেলা সাড়ে ১১...

    বরিশালে অতিভারি বৃষ্টির আভাস: সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা

    বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপটি আরও শক্তি সঞ্চয় করে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের (খুলনা, সাতক্ষীরা ও যশোর) স্থলভাগে...

    ব্রিজ না করেই লাখ টাকা লোপাট: সাঁকোর ছবি ভাইরাল

    উদয়কাঠি ইউনিয়নের বাসিন্দা, বরিশাল জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এবং বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাওলাদ হোসেন সানা...

    দেশের উত্তর পূর্বাঞ্চলের অন্যতম প্রবেশদ্বার খ্যাত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর রফতানিমুখী বন্দর হিসেবেই পরিচিত। এবার পুরোপুরিভাবে আমদানিমুখী হতে যাচ্ছে বন্দরটি। এই বিষয়ে প্রাথমিক ঘোষণার পর আখাউড়া স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে। ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্টরা জানান এরই মধ্যদিয়ে সেভেন সিস্টার খ্যাত সাতটি অঙ্গ রাজ্যের সঙ্গে যুক্ত ঝিমিয়ে পড়া স্থলবন্দরটি চাঙ্গা হয়ে উঠবে।

    ১৯৯৪ সালে পোর্ট অব কল হিসেবে ঘোষিত হয়ে আখাউড়া স্থলবন্দরটি চালু হলেও ২০১০সালে পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর হিসেবে যাত্রা শুরু করে। দীর্ঘ ২৭ বছর পর আমদানীমুখী হওয়ার খবরে ব্যবসায়ীদের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

    এ বিষয়ে আখাউড়া স্থলবন্দর আমদানি-রফতানিকারক অ্যাজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘দীর্ঘদিন যাবত বন্দরটি দিয়ে বোল্ডপাথর, সিএনজি অটোপার্স, ফুলের ঝাড়ু, সাতকরা ও তরল রাবারসহ নামমাত্র কয়েকটি পণ্য আমদানির অনুমোদন ছিল। এসব পণ্য মাঝে মাঝে আমদানি করতেন ব্যবসায়ীরা৷ কিন্তু এই পণ্যগুলো দেশের মানুষের কোনো কাজে আসতো না।’

    তিনি আরও বলেন, ‘চলতি বছরের গত ৯ ফেব্রুয়ারি আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের মাধ্যমে বন্দরের ব্যবসায়ীদের কাছে খবর আসে, বন্দরে নিষিদ্ধ ঘোষিত পণ্য ব্যতীত সব ধরনের পণ্য আমদানির প্রাথমিক অনুমোদন হয়েছে। এখন শুধু গ্যাজেট হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে। এমন খবরে স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীরা বেশ আনন্দিত-উচ্ছ্বসিত। তারা বলছেন- এ ঘোষণার মধ্য দিয়ে স্থলবন্দরটিতে কর্মচাঞ্চল্য হয়ে উঠবে। এছাড়া অনেক বেশি শ্রমিকের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।’

    স্থলবন্দর কর্মকর্তা (ট্রাফিক) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘এ ঘোষণার মধ্য দিয়ে ঝিমিয়ে থাকা বন্দরটি এখন চাঙ্গা হয়ে উঠবে।’

    এদিকে, বন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘এ ঘোষণা আমরাও শুনেছি। ঘোষণা বাস্তবায়ন হলে বন্দরে রাজস্ব অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে।’

    সম্পর্কিত সংবাদ

    সর্বশেষ সংবাদ

    পটুয়াখালীতে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড

    উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে পটুয়াখালী সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। বাতাসের চাপ আগের চেয়ে কিছুটা...