More

    টানা ১৬ বছরের মেয়র অবশেষে সাময়িক বরখাস্ত

    অবশ্যই পরুন

    পটুয়াখালীতে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড

    উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে পটুয়াখালী সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। বাতাসের চাপ আগের চেয়ে কিছুটা...

    স্বাস্থ্যবিধি না মানায় কলাপাড়ায় ৩৪ জনকে অর্থদন্ড

    পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় লকডাউন অমান্য করায় এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৩৪ জনকে অর্থদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বুধবার বেলা সাড়ে ১১...

    বরিশালে অতিভারি বৃষ্টির আভাস: সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা

    বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপটি আরও শক্তি সঞ্চয় করে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের (খুলনা, সাতক্ষীরা ও যশোর) স্থলভাগে...

    ব্রিজ না করেই লাখ টাকা লোপাট: সাঁকোর ছবি ভাইরাল

    উদয়কাঠি ইউনিয়নের বাসিন্দা, বরিশাল জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এবং বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাওলাদ হোসেন সানা...

    মাত্র একবার জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়েছিলেন। সেই থেকে টানা ১৪ বছর ধরে ছিলেন পৌর মেয়র হিসেবে ক্ষমতায়। এরও আগে ওই পৌরসভা প্রতিষ্ঠার পর টানা দুইবছর ছিলেন প্রশাসকের দায়িত্বে। অবশেষে নাটোরের বাগাতিপাড়া পৌরসভার এই মেয়র মোশাররফ হোসেনকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে নির্ধারিত মেয়াদসহ বিভিন্ন অজুহাতে টানা ১৬ বছর ক্ষমতা ধরে রাখা এই বিএনপি নেতার শাসনের অবসান হলো। তিনি বাগাতিপাড়া থানা বিএনপির আহ্বায়ক।

    পৌরসভাটি প্রতিষ্ঠার পর ২০০৪ সালের ২৬ জুলাই প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পান তিনি। এরপর ২০০৬ সালে প্রথম নিবার্চনে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হন। এরই ধারাবাহিকতায় ২০০৮ সালে পদবি পরিবর্তন হয়ে মেয়র হন তিনি। এভাবেই প্রতিষ্ঠার পর থেকে এই পৌরসভার চেয়ারে তিনি আসীন রয়েছেন একটানা প্রায় ১৬ বছর। কেননা পৌরসভাটি যথাযথ শর্ত মেনে করা হয়নি বিধায় তা বাতিল করার পক্ষে-বিপক্ষে মতামতকে পুজি করে আদালতে চলমান মামলার অজুহাতে ২০১১ সালে মেয়াদ শেষ হলেও ৯ বছর ধরে নির্বাচন হচ্ছিল না ওই পৌরসভায়। তাই তো প্রতিষ্ঠার পর থেকে তিনি একাই শাসন করে চলছিলেন পৌরসভাটি। অবশেষে স্থানীয় সরকারের প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে তাকে করা হলো সাময়িক বরখাস্ত।

    গত ২১ জানুয়ারি স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব ফারজানা মান্নান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়,মেয়র মোশাররফ পৌর স্বার্থের পরিপন্থী কাজ করেছেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধে আরও অভিযোগ হলো সরকারি দায়িত্ব পালন না করা,সরকারি নির্দেশনা অমান্য করা,জাতীয় দিবসে অংশগ্রহণ না করা ও এডিপির অর্থ ব্যয়ে অনিয়ম। এগুলো ২০০৯ সালের পৌর আইনের ধারা ৩১, উপধারা ১ এর খ ও ঘ অনুসারে রাষ্ট্রের পক্ষে হানিকর ও ক্ষমতার অপব্যবহার পর্যায়ভুক্ত। অভিযোগগুলো তদন্ত করেন বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক। তাদের সুপারিশের ধারাবাহিকতায় মন্ত্রণালয় মেয়র মোশাররফকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠায়। পাঠানো জবাব সন্তোষজনক হয়নি। উপরোন্তু মেয়র মোশাররফ এডিপির অর্থ ব্যয়ের অনিয়মের কথা স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন। এমন অবস্থায় পৌর আইন ২০০৯, ধারা ৩১, উপধারা ১ অনুযায়ী এই মেয়রকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

    বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে নাটোর স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক গোলাম রাব্বী জানান, প্রায় ২ বছর আগে তিনি মেয়র মোশাররফের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাঠান। এরই ধারাবাহিকতায় নানা চিঠি চালাচালির মধ্যদিয়ে তাকে বরখাস্ত করা হলো। তিনি বৃহস্পতিবার আদেশের কপি পেয়েছেন বলেও জানান।

    এ ব্যাপারে জানতে চাইলে মেয়র মোশাররফ জানান,তিনি এখনও কোনও আদেশের কপি পাননি।

    সম্পর্কিত সংবাদ

    সর্বশেষ সংবাদ

    পটুয়াখালীতে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড

    উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে পটুয়াখালী সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। বাতাসের চাপ আগের চেয়ে কিছুটা...