More

    মাদক ব্যবসায়ীদের ধরা-ছাড়ার বাণিজ্যে ব্যস্ত এসআই, হঠাৎ হাজির কমিশনার

    অবশ্যই পরুন

    পটুয়াখালীতে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড

    উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে পটুয়াখালী সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। বাতাসের চাপ আগের চেয়ে কিছুটা...

    স্বাস্থ্যবিধি না মানায় কলাপাড়ায় ৩৪ জনকে অর্থদন্ড

    পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় লকডাউন অমান্য করায় এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৩৪ জনকে অর্থদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বুধবার বেলা সাড়ে ১১...

    বরিশালে অতিভারি বৃষ্টির আভাস: সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা

    বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপটি আরও শক্তি সঞ্চয় করে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের (খুলনা, সাতক্ষীরা ও যশোর) স্থলভাগে...

    ব্রিজ না করেই লাখ টাকা লোপাট: সাঁকোর ছবি ভাইরাল

    উদয়কাঠি ইউনিয়নের বাসিন্দা, বরিশাল জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এবং বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাওলাদ হোসেন সানা...

    পুলিশ কর্মকর্তা হয়ে চোরাই প্রাইভেটকার ব্যবহার করেন। সবসময় মাদক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে চলেন। বড় বড় মাদক ব্যবসায়ী দিয়ে ব্যবসা করেন তিনি। তাদের ব্যবহার করে ছোট ছোট ব্যবসায়ীদের ধরে টাকা আদায় করেন। এমনই অভিযোগ ছিল রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) তালাইমারী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মাসুদ রানার বিরুদ্ধে।এই এসআই-এর বিরুদ্ধে পাহাড় সমান অভিযোগ জমলেও এতদিন ধরা ছোঁয়ার বাইরে থেকেছেন তিনি। অভিযোগ পেয়ে গত মঙ্গলবার আকস্মিকভাবে পুলিশ কমিশনার নিজেই উপস্থিত হন ফাঁড়িতে। ওই সময়েই এসআই মাসুদ রানা টাকার বিনিময়ে এক মাদক ব্যবসায়ীকে ছেড়ে দেয়ার বিষয়ে দর কষাকষিতে ব্যস্ত। পুলিশ কমিশনার আবু কালাম হাতেনাতে ধরে তাৎক্ষণিকভাবে এসআই মাসুদ রানাকে সাময়িক বরখাস্তের নির্দেশ দেন। তিনি এখন ফাঁড়ির চার্জ হারিয়ে পুলিশ লাইনে।এসআই মাসুদ রানা গত দু’বছর ধরে ফাঁড়ির ইনচার্জের দায়িত্বে ছিলেন। আর এতদিন এই ফাঁড়িটি ছিল মাদক ব্যবসায়ীদের আখড়া। বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীদের নিয়ে সময় কাটত মাসুদ রানার। এলাকায় মাদক বিক্রি ছিল যেন ওপেন সিক্রেট। মাসুদ রানার লোকরাই নিয়ন্ত্রণ করেন এসব কারবার। আর দিনশেষে টাকার বান্ডিল আসতো তার পকেটে।স্থানীয়রা জানিয়েছে, এসআই মাসুদ রানা প্রতিদিন ধরা-ছাড়ার বাণিজ্য করতো।কমিশনের ফাঁড়ি অভিযানে থাকা চন্দ্রিমা থানা ওসি সিরাজুম মুনীর জানিয়েছেন, এসআই মাসুদ রানাকে সাময়িক বরখাস্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে এবং তার বিরুদ্ধে আনিত সকল অভিযোগ তদন্ত হচ্ছে।বোয়ালিয়া জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) সোনিয়া পারভীন বিষয়টি তদন্ত করছেন। তিনি জানিয়েছেন, এ বিষয়ে তদন্তের জন্য নির্দেশ পেয়েছেন। তদন্ত শেষ হলে কর্তৃপক্ষের নিকট প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে।

    সম্পর্কিত সংবাদ

    সর্বশেষ সংবাদ

    পটুয়াখালীতে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড

    উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে পটুয়াখালী সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। বাতাসের চাপ আগের চেয়ে কিছুটা...