More

    হাসপাতালের ভুলে গর্ভবতীকে জোরপূর্বক গর্ভপাতের চেষ্টা!

    অবশ্যই পরুন

    পটুয়াখালীতে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড

    উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে পটুয়াখালী সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। বাতাসের চাপ আগের চেয়ে কিছুটা...

    স্বাস্থ্যবিধি না মানায় কলাপাড়ায় ৩৪ জনকে অর্থদন্ড

    পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় লকডাউন অমান্য করায় এবং স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ৩৪ জনকে অর্থদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বুধবার বেলা সাড়ে ১১...

    বরিশালে অতিভারি বৃষ্টির আভাস: সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কতা

    বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপটি আরও শক্তি সঞ্চয় করে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের (খুলনা, সাতক্ষীরা ও যশোর) স্থলভাগে...

    ব্রিজ না করেই লাখ টাকা লোপাট: সাঁকোর ছবি ভাইরাল

    উদয়কাঠি ইউনিয়নের বাসিন্দা, বরিশাল জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এবং বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাওলাদ হোসেন সানা...

    মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে এক রোগীর পরিবর্তে আরেক অন্তঃসত্ত্বা নারীকে জোরপূর্বক গর্ভপাত (ডিএনসি) ঘটানোর চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। ভুক্তভোগী জিয়াসমিন আক্তার (২২) এর অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছে স্বজনরা।

    বুধবার (২৭ জানুয়ারি) সকালে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আরশাদ উল্লার কাছে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী জিয়াসমিনের চাচা লুৎফর রহমান।

    অভিযোগের সূত্র ও হাসপাতালে গিয়ে ওই ভুক্তভোগী নারীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, জেলার সাটুরিয়া উপজেলার গর্জনা এলাকার রফিকুল ইসলামের মেয়ে জিয়াসমিন আক্তার শারীরিক অসুস্থজনিত কারণে ২৪ জানুয়ারি মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডের ২০ নম্বর বেডে ভর্তি হন। সেখানেই চিকিৎসা চলছিলো ৫ মাসের গর্ভবতী জিয়াসমিনের।

    এরই মধ্যে মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুরে ডাক্তার নাসিমার নির্দেশে মেডিক্যাল অ্যাসিসট্যান্ট ফাতেমা আক্তার জিয়াসমিনকে বেড থেকে নিয়ে যান। কর্তব্যরত ডাক্তার রুমা আক্তারের সহযোগিতায় জোরপূর্বক গর্ভপাতের চেষ্টা করান। এতে করে জিয়াসমিন অসুস্থ হয়ে পড়ে বলে অভিযোগ করা হয়।

    হাসপাতালে দায়িত্বরত গাইনি বিশেষজ্ঞ ডাক্তার নাসিমা আক্তার বলেন, ‘ঘটনার সময় রাউন্ডে রোগী দেখছিলাম। এসব বিষয়ে ডাক্তার রুমা বলতে পারবেন।’

    গাইনি বিশেষজ্ঞ রুমা আক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘গাইনি ওয়ার্ডের ২০ ও ২১ নাম্বার বেডে পাশাপাশি দুই জন গর্ভবতী রোগী রয়েছে। ২১ নাম্বার বেডের রোগীকে ডিএন্ডসি করানোর কথা ছিল। সেভাবেই তার চিকিৎসা চলছিল। কিন্তু মেডিক্যাল অ্যাসিসট্যান্ট ফাতেমা বেগম ভুল করে ২০ নাম্বার বেডের রোগীকে অপারেশন রুমে নিয়ে আসেন।’

    জানা গেছে, ঘটনার পর থেকে মেডিক্যাল অ্যাসিসট্যান্ট ফাতেমা নিখোঁজ। তার মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

    মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আরশ্বাদ উল্লাহ বলেন, ‘হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডের ২০ এবং ২১ নাম্বার বেডে দুজন রোগী পাশাপাশি ছিল। ২১ নাম্বার বেডের রোগীকে আনতে গিয়ে মেডিক্যাল অ্যাসিসট্যান্ট ভুল করে ২০ নাম্বার বেডের রোগীকে নিয়ে গর্ভপাতের চেষ্টা করেন। রোগীর কান্নাকাটি শুরু করলে গর্ভপাত ঘটানো থেকে বিরত থাকেন।’

    তিনি আরও জানান, এই ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই বিষয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

    সম্পর্কিত সংবাদ

    সর্বশেষ সংবাদ

    পটুয়াখালীতে ১৫ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাতের রেকর্ড

    উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে পটুয়াখালী সংলগ্ন বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। বাতাসের চাপ আগের চেয়ে কিছুটা...